Posts Subscribe to This BlogComments

Follow Us

Monday, December 14, 2009

আদা

মসলা জাতিয় ফসলের মধ্যে আদা (Ginger) অন্যতম। আদা (Zingiber officinale) খাদ্যশিল্পে, পানীয় তৈরীতে, আচার, ঔষধ ও সুগন্ধি তৈরীতে ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও মুখের রুচি বাড়াতে ও বদহজম রোধে আদাশুকিয়ে চিবিয়ে খাওয়া হয়। এছাড়াও সর্দি, কাশি, আমাশয়, জন্ডিস, পেট ফাঁপায় আদা চিবিয়ে বা রস করে খাওয়া হয়।অন্যান্য ফসলের চেয়ে আদা চাষ করা লাভজনক।আদার প্রধান উপকারিতা এই যে, এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। আদা চা ক্লান্তি দূর করে। এটি শরীরে উষ্ণতা বাড়ায়। ফলে যাদের পিত্ত সমস্যা আছে তাদের এটি কম খাওয়া উচিত।


বাংলাদেশের টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, রংপুর, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, পঞ্চগড় ও পার্বত্য জেলাগুলোতে ব্যাপকভাবে আদা চাষ হয়ে থাকে।আদা বীজ রোপণের প্রায় ৭-৮ মাস পর ফসল পরিপক্ক হয়। আদা এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে মে মাস পর্যন্ত রোপণ করা হয়। সাধারণত ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে আদা উত্তোলন করা হয়। আদায় আমিষ ২·৩%, শ্বেতসার ১২·৩% , আঁশ ২·৪% , খনিজ পদার্থ, ১·২% পানি ৮০·৮% ইত্যাদি উপাদান বিদ্যমান।

Related Post



0 comments:

Post a Comment

Bangla Help

Sponsor