Posts Subscribe to This BlogComments

Follow Us

Saturday, November 21, 2009

চা


চায়ের ভেষজ গুণ অনেক
চায়ের পাতায় রয়েছে ফ্ল্যাভোনয়েড, যার মধ্যে রয়েছে চমৎকার অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। খাবারের সঙ্গে বেশি পরিমাণে ফ্ল্যাভোনয়েড শরীরে গেলে হৃদযন্ত্র বেশি সক্রিয় থাকে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়।
গবেষণায় দেখা গেছে, ফলমূল বা শাকসবজিত যে পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়, চায়ে তার চেয়ে বেশি পরিমাণে রয়েছে। চা অভ্যর্থনার পানীয় হিসেবে জনপ্রিয় হলেও এর ঔষধি গুণটি সমান্তরালভাবে স্বীকৃত। একই ধরনের চায়ের পাতা থেকে তিন ধরনের চা তৈরি হয়। যেমন-গ্রিন টি, উলং টি, ব্ল্যাক টি। সতেজ সবুজ পাতা রোদে শুকিয়ে তাওয়ায় সেঁকে গ্রিন টি তৈরি করা হয়।
গ্রিন টি সামান্য ফার্মেন্ট করলে হয় উলং টি। পুরোপুরি ফার্মেন্ট করলে হয় ব্ল্যাক টি। এখনকার গবেষণায় জানা যায়, গ্রিন টি পেটের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। ট্যানিক এসিডের জন্য গ্রিন টির লিকার দাঁতের ক্ষয়রোধ এবং মাঢ়ি মজবুত করে। দেহের কোনো অংশ কেটে গেলে সে স্থানে গ্রিন টির লিকারে তুলো ভিজিয়ে দিলে রক্ত পড়া বন্ধ হয়। আবার খুব চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়ার পর উলং চায়ের লিকার খেলে কোলেস্টেরল বাড়ার আশঙ্কা তেমন থাকে না। আবার রক্তে লৌহ-কণিকার প্রাধান্য থাকলে প্রধান খাবারের পর পরই চা পান করলে ভালো হয়। এতে লৌহ শোষণের মাত্রা কমে যায়। বিশেষ করে থ্যালাসেমিয়ার ক্ষেত্রে।
পোকামাকড় কামড়ালে যদি ক্রমাগত চুলকায় বা ফুলে যায়, সেখানে ভেজা সবুজ চা-পাতা দিয়ে ঢেকে দিলে আরাম বোধ হয়। চোখের ক্লান্তির ছাপ কাটাতে ভেজা টি-ব্যাগ চোখের ওপর রাখলে ভালো ফল হয়। ত্বকে আঁচিলের সমস্যা দেখা দিলে চা-গাছের তেল প্রতিদিন ফোঁটা ফোঁটা করে আঁচিলের ওপর লাগাতে হবে। চায়ে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ পটাশিয়াম ও ক্যাফিন। শরীরে আলস্য কাটিয়ে একটা চলমান ও স্কূর্তিভাব আনতে পটাশিয়াম ও ক্যাফিনের জুড়ি নেই। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তাদের জন্যও পটাশিয়াম উপকারী। চায়ে রয়েছে জিঙ্ক, যা শরীর বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন। চা শুধু উদ্দীপকই নয়, এটা রক্ত জমাট বাঁধাও দূর করে। চা-পাতা সেদ্ধ পানি চুল পড়া রোধ করে। ২০-২৫টি কাঁচা চা-পাতা ও তুলসীপাতা একত্রে সেদ্ধ করে মাথায় মেখে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেললে উকুন দূর হয়। অনিয়মিত হৃৎস্পন্দন ও গর্ভবতীদের খুব বেশি চা খাওয়া উচিত নয়।
আখতারুন নাহার আলো
প্রধান পুষ্টি কর্মকর্তা, বারডেম
সূত্র: দৈনিক প্রথম আলো, ফেব্রুয়ারী ০৪, ২০০৯







চা কিভাবে বানাবেন?
প্রথমে পরিমাণ মত পানি নিবেন ক্যাটলিতে।তারপর ‍চুলায় রাখবেন।পানি বাষ্পায়িত হতে দেখলে এতে ছেড়ে দিবে ‍চা-পাতা।নূনতম ৫ মিনিট রাখা বাধ্য।চায়ে লিকার আসলে বুঝবেন যে হয়ে গেছে।তারপর একটা চায়ের কাপ নিয়ে এতে চিনি,দুধ মেশাবেন।আপনার ইচ্ছে হলে দুধ নাও মিশাতে পারেন।‍ব্যাস হয়ে গেল আপনার চা।

এভাবেই আপনি সহযেই বানাতে পারবেন চা।যদি একটু মজা করে খেতে চান।তাহলে একটি লেবুর ৪ ভাগের এক ভাগের চেয়েও কম লেবুর রস চা তে মিশান।দেখবেন কি মজার চা। এর সাথে খেতে পারবেন পরোটা,ব্রেড,বিস্কুট ইত্যাদি।যান এখনই যান আপনার রান্নাঘরে এবং বানিয়ে টেষ্ট করুন কেমন হল আপনার চা।


চা সম্পর্কে ভুল ধারণা
চা সম্পকে আমাদের অনেকের ভুল ধারণা আছে। চা খেলে রাতে ঘুম আসেনা। চা লিভারের ক্ষতি করে। চা চামড়া কালো করে। এরকম অনেক ভুল ধারণা চা সম্পর্কে শোনা যায়। যদিও চা খেলে গায়ের রঙ কাল হবে না। কারণ ত্বকের রঙ নির্ভর করে ম্যালানোসাইট কোষের সক্রিয়তার উপর।চা কোনোভাবেই ম্যালানোসাইট ত্বকের চকচকে ভাবটা ধরে রাখার জন্য চা পালন করতে পারে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। চা পান করলে লিভারের কোন ক্ষতি হয়না । তবে এখানে মনে রাখতে হবে অতিরুক্ত পানকরলে উল্টো ফল, যেমন রাতে ঘুম কম হওয়া । অবসাদ আসতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিতে পারে। তবে চা খেতে হবে লাল চা এতে চা এর উপকারিতা পাওয়া যাবে।

হাড়ের সুরক্ষায় চা

গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব মহিলা দিনে এক কাপ বা তার বেশি কাপ পরিমাণ চা পান করেন তাদের হাড়, যেসব মহিলা আদৌ চা পান করেন না তাদের চেয়ে মজবুত। কিছু মহিলা দিনে এক কাপ চা পান করেন। আবার কিছু মহিলা দিনে ছ’কাপেরও বেশি চা পান করেন। কিন্তু এক কাপের বেশি চা অতিরিক্ত কোনো সুরক্ষা দেয় না। হাড়ের সুরক্ষার জন্য দৈনিক এক কাপ চা গ্রহণই যথেষ্ট।
গবেষকদের মতে, চায়ে রয়েছে ফ্লাভোনয়েড নামক উপাদান। এই ফ্লাভোনয়েডই হাড়ে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া ঘটায় এবং হাড়ের ঘনত্ব বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে হাড়ের ভঙ্গুরতা রোগ হয়। মহিলাদের মধ্যে হাড়ের ভঙ্গুরতা বা অসটিওপরোসিস সমস্যাটা সবচেয়ে বেশি পরিলক্ষিত হয়। একটা নির্দিষ্ট বয়সের পরে এবং অন্যান্য কিছু কারণে মহিলারা হাড়ের ভঙ্গুরতা রোগে ভুগে থাকেন। দৈনিক পরিমিত পরিমাণ চা গ্রহণ করলে মহিলারা হাড়ের ভঙ্গুরতা প্রতিহত করতে পারেন।
ডা. ওয়ানাইজা
সূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০০৯



Related Post



0 comments:

Post a Comment

Bangla Help

Sponsor